শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন

করোনা ভাইরাস
***   সবচেয়ে সাধারণ উপসর্গসমূহ   ***   জ্বর   ***   শুকনো কাশি   ***   ক্লান্তিভাব   ***   কম সাধারণ   ***   উপসর্গসমূহ   ***   ব্যথা ও যন্ত্রণা   ***   গলা ব্যথা   ***   ডায়রিয়া   ***   কনজাংটিভাইটিস   ***   মাথা ব্যথা   ***   স্বাদ বা গন্ধ না পাওয়া   ***   ত্বকে ফুসকুড়ি ওঠা বা আঙুল বা পায়ের পাতা ফ্যাকাসে হয়ে যাওয়া
সংবাদ শিরোনাম :
কক্সবাজারের স্থানীয় মহিলা এবং মেয়েদের জন্য সেইফ স্পেস চালু করল আইওএম সাংবাদিক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ এর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ কালিগঞ্জে ২৮ জন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল, যাচাই বাছাই সম্পন্ন। কালিগঞ্জে তথ্য অধিকার আইন ব্যবহারের উপর এক দিনের প্রশিক্ষণ কালিগঞ্জ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন সম্পন্ন সভাপতি মনি-সম্পাদক তাহের ববি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় সাতক্ষীরা স্টুডেন্ট সোসাইটির নিন্দা আশাশুনিতে শরিফুল হত্যার মামলায় আটক-২ আশাশুনিতে ট্রলার ডুবে নিখোঁজদের মৃতদেহ উদ্ধার হয়নি ॥ তদন্ত টিম গঠন কালিগঞ্জের ভাড়াশিমলায় বীরমুক্তিযোদ্ধাকে মারপিট ও মিথ্যা মামলায় হয়রানির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন বিদেশ ফেরত কর্মজীবি প্রবাসীদের তথ্য সংরক্ষণে চালু হলো রেমিমিস
আশাশুনিতে ভুল চিকিৎসায় ভ্যান চালকের হাত যায় যায়!

আশাশুনিতে ভুল চিকিৎসায় ভ্যান চালকের হাত যায় যায়!

জি এম মুজিবুর রহমান, আশাশুনি (সাতক্ষীরা) ঃ আশাশুনিতে এক গ্রাম্য ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় ভ্যান চালকের হাতের অবস্থা শোচনাীয় হয়ে পড়েছে। চিকিৎসক নিজের ত্রুটি ঢাকতে ভাল ডাক্তারের কাছে চিকিৎসার খরচ বহনের ওয়াদা দিয়ে গা ঢাকা দিয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার শোভনালী ইউনিয়নের বালিয়াপুর গ্রামে।
বালিয়াপুর গ্রামের মৃত ছদর উদ্দিন গাজীর পুত্র মইনুরের হাতে টেংরা মাছের কাটা বিধলে যন্ত্রণাকাতর হয়ে বাটরা বাজারে যায়। সেখানে  জনারেল প্রাক্টিশনার, আরএমপি ডিগ্রীধারী এবং হাড়জোড়া, বাত, ব্যথা, জয়েন্ট ও মেডিসিন রোগী চিকিৎসক সাইনবোর্ড ধারী গ্রাম ডাঃ মোঃ আক্তারুল ইসলাম তাকে তার চেম্বারে ডেকে নেন। ১৪/১২/১৮ তাং তিনি প্রেসক্রিপশান করে দেন এবং রোগির হাতের কবজির জয়েন্টে একসাথে পর পর ৩টি ইনজেকশান পুশ করেন। টাকা নেন ৭০০ টাকা। অসহায় ভ্যান চালক মইনুর হাতের কোন উপকার না পেয়ে তার কাছে আরও দু’দিন চিকিৎসা নিতে গেলে কেবল ঔষুধ পরিবর্তন করে দেওয়া হয়। কোন উপকার না পেয়ে অবশেষে মইনুর ২২/২/১৯ তাং অধ্যাপক ডাঃ ইব্রাহিম খলিলের কাছে গেলে ভুল চিকিৎসার বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। চিকিৎসা খরচ যোগাড় করতে মইনুর তার একমাত্র আয়ের সম্বল যন্ত্রচালিত ভ্যান গাড়িটি ৩৫ হাজার টাকায় বিক্রয় করতে বাধ্য হন। তিনি চিকিৎসা খরচ যোগাতে সর্বস্ব খুইয়ে বসলেও জয়েন্টে ইনজেকশানের কারণে হাত নিয়ে চরম বিপদে রয়েছেন। এব্যাপারে শোভনালী ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি জানতে পেরে গ্রাম ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করলে ভুল চিকিৎসার কথা বুঝতে পেরে ক্ষমা প্রার্থনা করে, সকল চিকিৎসা খরচ বহনের ওয়াদা করলেও বাস্তবায়ন না করে বাটরা থেকে চেম্বার গুটিয়ে নিয়ে যান। অনেক খোজাখুজির পর অবশেষে শ্রীউলা ইউনিয়নে নাকতাড়া কালবাড়ির কাছে ডাক্তারের নতুন চেম্বারে মইনুর উপস্থিত হলেও ডাক্তার তাদের আগমন বুঝতে পেরে কেটে পড়েন। শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিলের শরনাপন্ন হলে চেয়ারম্যান ডাক্তারের মোবাইলে রিং করে সন্ধ্যার মধ্যে তার সাথে দেখা করার জন্য নির্দেশ দিলে তিনি সেখানে আসবেন বলে জানান। হাতের কব্জি হতে কাটতে হতে পারে এমন আশঙ্খায় ভুগছেন মইনুর। হাতের শেষ পরিণতি কি হবে তা নিয়ে ভীত হয়ে পড়েছেন মইনুর। তার হাত ভাল না হলে খেটে খাওয়া মানুষটির পরিবার পথে বসতে পারে। এব্যাপারে জন প্রতিনিধি ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020 www.satkhiranews24.com
Hosted By LOCAL IT