23 September 2017 , Saturday
Bangla Font Download
সর্বশেষ খবর »

You Are Here: Home » সর্বশেষ সংবাদ » সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন – বল্লীর স্কুল ছাত্রী রিমার আত্মহতায় প্ররোচনাকারীদের বিচার দাবি

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি :
আমাদের গ্রামের স্কুল ছাত্রী রিমা খাতুনের আত্মহননের ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা হচ্ছে। এ ঘটনায় যারা জড়িত তাদের কেউ কেউ সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছেন। অপরদিকে এ ঘটনায় জড়িত নন এমন কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে।
সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে একথা বলেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বল্লী গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট মেহেদি হাসান লাল্টু। এ সময় বল্লী ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, বল্লী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাকসহ এলাকার অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।
মেহেদি হাসান বলেন গত ২৫ আগস্ট রাতে বল্লী গ্রামের জাকির খাঁর মেয়ে বল্লী মুজিবর রহমান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী রিমা খাতুন নিজ ঘরে পড়াশুনা করছিল। তার গৃহশিক্ষক রেজাউল ইসলাম তাকে পড়াচ্ছিলেন। এ সময় পাশের বাড়ির মহব্বত আলি ও তার বাবা আনছার আলি খাঁ পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রিমার ঘরের দরজা বাইরে থেকে শিকল তুলে আটকে দেয়। পরে তারা গ্রামের মানুষ জড়ো করে প্রচার করে মেয়েটির সাথে শিক্ষকের অনৈতিক সম্পর্কের কথা। তারা বলেন কিছু অতি উৎস্হাী লোক এতে অতি আগ্রহী হয়ে বিষয়টি নিয়ে হইচই শুরু করে দেয় । তারা প্রতিবেশি হযরতের বাড়িতে এ নিয়ে এক সালিশ বসায় । সালিশে রেজাউলের কাছে তারা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা দাবি করেন। এক পর্যায়ে শিক্ষক রেজাউল তার স্বজনদের সাথে এলাকা ত্যৗাগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন রিমা মিথ্যা অপবাদজনিত সামাজিক অপমান সহ্য করতে না পেরে রাতে বাড়ির পাশে একটি আমগাছে গলায় রশিতে ঝুলে আত্মহত্যা করে। তিনি এ ঘটনার সঠিক তদন্ত দাবি করেন।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয় রিমা খাতুনকে যারা মিথ্যা অপবাদ দিয়ে তাকে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করেছে তারাই তার অকাল মৃত্যুর জন্য দায়ী। এ প্রসঙ্গে তারা ওই রাতে যারা সালিশ বসিয়েছিলেন তাদের নাম প্রকাশ করেন । তারা বলেন রিমার অপবাদের মিথ্যা প্রচার দিয়ে সালিশের নেতৃত্ব দেন স্থানীয় অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য মিজানুর রহমান ও হাফিজুল ইসলাম। তাদের সাথে ছিলেন আনছার আলি , তার ছেলে মহব্বত এবং বল্লী গ্রামের বুলুর ছেলে শাওন । সালিশে গ্রামের আর কাউকে বসতে দেওয়া হয়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন এ ঘটনা নিয়ে সাতক্ষীরা থানায় যে মামলা হয়েছে তাতে চেয়ারম্যানের ভাতিজা বেলালের নাম দেওয়া হলেও প্রকৃতপক্ষে সে সালিশে উপস্থিত ছিল না। এ ছাড়া মামলায় সাবেক সেনা সদস্য মিজানুর রহমানের নাম আসামিভূক্ত না করে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কিছু নিরীহ লোককে জড়ানো হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন আত্মহননকারী রিমার মা ফজিলা খাতুনও পুলিশের সামনে হাজির হয়ে বলেছেন যে সালিশে বেলাল উপস্থিত ছিল না। অথচ পুলিশকে ভুল তথ্য দিয়ে তাকে কেনো আসামি করা হলো তা রহস্যজনক।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন আমরা রিমার মৃত্যুর জন্য যারা দায়ী তাদের বিচার দাবি করছি। এ ছাড়া এ ঘটনায় বেলালসহ যারা জড়িত নন তাদেরকে অব্যাহতি দেওয়ারও দাবি জানাচ্ছি।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ফারুক আহমেদ, আজহারুল ইসলাম, আফতাবুজ্জামান লালটু, আকবর হোসেন, আবদুর রশীদ, কাদের সরদার প্রমুখ।

Use Facebook to Comment on this Post

Leave a Reply

Editor : ISHARAT ALI, 01712651840, 01835017232 E-mail : satkhiranews24@yahoo.com, rangtuli80@yahoo.com


Site Hosted By: WWW.LOCALiT.COM.BD