17 January 2018 , Wednesday
Bangla Font Download
সর্বশেষ খবর »

You Are Here: Home » অন্যান্য খবর, জাতীয়, প্রবাশের সংবাদ, সর্বশেষ সংবাদ » চেষ্টা করেও শেখ হাসিনার সাথে দেখা পাইনি- ড. ইউনূস

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আপনার সম্পর্ক কিভাবে বর্ণনা করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে শান্তিতে নোবেলজয়ী গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক প্রধান ড. মুহাম্মদ ইউনূস বললেন, ‘‘এটা আপনি ঠিক ব্যাখ্যা করতে পারবেন না। আমাদের কখনো সামনাসামনি দেখা হয়নি। যদিও আমি তার সাক্ষাত পেতে অ্যাপয়েন্টমেন্ট যোগাড় করার চেষ্টা করেছি, কিন্তু কখনোই দেখা হলো না।’’

বুধবার আমেরিকার প্রভাবশালী দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমসের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত এক সাক্ষাতকারে ড. ইউনূস এ কথা বলেন। এমন এক দিনে সাক্ষাতকারটি প্রকাশিত হল; যেদিন ঢাকায় সফররত ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) প্রতিনিধিদলকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুরোধ জানিয়েছেন, সংস্থাটি যেন ড. ইউনূসকে ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করতে কাজ করে।

নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর ইনডিয়া ইনক ব্লগে প্রকাশিত সাক্ষাতকারটি নিয়েছেন মুম্বাইস্থ সাংবাদিক নেহা শিরানি। সাক্ষাতকারে ক্ষুদ্রঋণ কেন্দ্র করে সম্প্রতি ইনডিয়া ও বাংলাদেশে তৈরি হওয়া বিতর্ক এবং গ্রামীণ ব্যাংক থেকে বাধ্যতামূলক অব্যাহতি পাওয়া নিয়ে কথা বলে ক্ষুদ্রঋণের প্রবর্তক ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

তাকে সরকার কেন সরিয়ে দিল? সে প্রসঙ্গে ড. ইউনূস বলেন, ‘‘তিনি (প্রধানমন্ত্রী) কখনো এ বিষয়টি ব্যাখ্যা করেন নি। কাজেই আমিও বুঝতে পারিনি যে আসলে কি ঘটছে? স্রেফ নানা ধরনের কিছু অনুমান সংবাদমাধ্যমগুলোতে আলোচিত হয়েছে। এসব অনুমানগুলোর একটা হল; আমি তার প্রতি রাজনৈতিক হুমকি। আমি বুঝি না যে, আমি কেন রাজনৈতিক হুমকি? তিনি কখনো বলেন নি যে, আমি তার প্রতি রাজনৈতিক হুমকি। বললে খুব সম্ভবত তিনি এমন বলতেন যে, ‘‘আমি কেন তাকে রাজনৈতিক হুমকি মনে করবো? তিনি কে? তিনি কিছুই না।’’

সাক্ষাতকারের কয়েকটি প্রশ্নোত্তর আলোচনা করা হল।

প্রশ্ন: গ্রামীণ ব্যাংক থেকে বেরিয়ে যেতে বাধ্য হবার বিষয়ে আপনার ভাবনা বলবেন কি?
উত্তর: আচ্ছা, বলছি। এটা এক ধরনের বেদনাদায়ক ব্যাপার। এর চেয়ে বেশি আমি কি আর বলতে পারি? … এটা একদমই অপ্রয়োজনীয় ছিল। এটা একটা কাণ্ডজ্ঞানহীন ব্যাপার। এর কোনো মানে নেই। কিন্তু এর ফলে গ্রামীণ ব্যাংক ঝুঁকিতে পড়েছে এবং এ কারণেই আমরা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত।

আমার প্রস্থান কোনো বিষয় নয়। আমি সরকারকে ইতিমধ্যেই বলেছি যে আমি যেতে চাই। আমি বলেছি যে, আপনারা আমাকে পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে রাখতে পারেন, ফলে আমার প্রস্থানের বিষয়টি সহজে গ্রহণ করতে পারবে মানুষ- কারণ সেক্ষেত্রে আমাকে পুরোপুরি চলে যেতে হচ্ছে না। আমি স্রেফ একটা নির্বাহী পদ থেকে অনির্বাহী পদে চলে যাবো।

কিন্তু সরকারের ছিল অন্য পরিকল্পনা। তারা আমাকে সরিয়েছে এবং এখনো তারা বদলি লোক খুঁজে পায় নি। আমরা ব্যাংকটির ভবিষ্যত নিয়ে দুশ্চিন্তিত। কারণ সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, ব্যাংকটির মালিক হচ্ছে দরিদ্র মানুষেরা। ব্যাংকের শেয়ারের ৯৭ ভাগেরই মালিক ঋণগ্রহীতারা এবং সরকার মাত্র ৩ ভাগের মালিক।

প্রশ্ন: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আপনার সম্পর্ক কিভাবে বর্ণনা করবেন?

উত্তর: তিনি (প্রধানমন্ত্রী) কখনো এ বিষয়টি ব্যাখ্যা করেন নি। কাজেই আমিও বুঝতে পারিনি যে আসলে কি ঘটছে? স্রেফ নানা ধরনের কিছু অনুমান সংবাদমাধ্যমগুলোতে আলোচিত হয়েছে। এসব অনুমানগুলোর একটা হল; আমি তার প্রতি রাজনৈতিক হুমকি। আমি বুঝি না যে, আমি কেন রাজনৈতিক হুমকি? তিনি কখনো বলেন নি যে, আমি তার প্রতি রাজনৈতিক হুমকি। বললে খুব সম্ভবত তিনি এমন বলতেন যে, ‘‘আমি কেন তাকে রাজনৈতিক হুমকি মনে করবো? তিনি কে? তিনি কিছুই না।’’

এটা আপনি ঠিক ব্যাখ্যা করতে পারবেন না। আমাদের কখনো সামনাসামনি দেখা হয়নি। যদিও আমি তার সাক্ষাত পেতে অ্যাপয়েন্টমেন্ট যোগাড় করার চেষ্টা করেছি, কিন্তু কখনোই দেখা হলো না।

প্রশ্ন: ২০০৭ সালে আপনি নাগরিক শক্তি নামে নতুন একটা দল গঠন করার ঘোষণা দেয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশি রাজনীতিতে যোগ দেয়ার কথা ভাবছিলেন। কি কারণে সিদ্ধান্ত পাল্টালেন?

উত্তর: তখনকার পারিপার্শ্বিক অবস্থা একদমই আলাদা ছিল। দেশ চালাচ্ছিল তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার। তারা শেখ হাসিনাসহ দেশের সব শীর্ষ নেতাকে কারাবন্দী করেছিল। ফলে একটা রাজনৈতিক শূন্যতা ছিল। নেতারা কারাবন্দী থাকা প্রধান দুটি দল বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিল এবং নির্বাচন ঘনিয়ে আসছিল।

কি ঘটবে! দেশ চালাবে কে! লোকজন অস্থির হয়ে পড়েছিল। কাজেই লোকজন আমার কাছে আসছিল- সব নেতৃত্বাস্থানীয় লোকেরাই- তারা বলছিলেন নির্বাচনে যাতে নেতৃত্ব দিতে পারি সে লক্ষে আমার রাজনীতিতে যোগ দেয়া উচিত। আমি বলেছিলাম, আমি রাজনীতিবিদ নই। আমি রাজনীতি জানি না। কিন্তু লোকেরা চাপ দিচ্ছিল। শেষ পর্যন্ত আমি বললাম, আমি রাজনীতিতে যোগ দেবো এবং একটা দল গঠন করবো। তারপর ধীরে ধীরে লোকজন বলতে শুরু করলো যে আমি কি ধরনের রাজনৈতিক দল করবো। ইত্যাদি বলতে শুরু করলো লোকজন। আমি জবাব দিতে চেষ্টা করলাম। দুই মাসের মধ্যেই আমি ঘোষণা দিলাম যে, না। আমি দল গঠন করছি না। এটুকুই সব। আমি কখনো কোনো রাজনৈতিক দল গঠন করিনি।

Use Facebook to Comment on this Post

Leave a Reply

Editor : ISHARAT ALI, 01712651840, 01835017232 E-mail : satkhiranews24@yahoo.com, rangtuli80@yahoo.com


Site Hosted By: WWW.LOCALiT.COM.BD